অণ্ডকোষে ব্যথা হওয়ার কারণ, অণ্ডকোষে ব্যথায় ঘরোয়া চিকিৎসা

0
2577
অন্ডকোষে ব্যথা

অণ্ডকোষ হলো পুরুষদের প্রজনন একটি অঙ্গ যা, লিঙ্গের নিচে ঝুলে থাকে। মূলত অণ্ডকোষের ভিতরে পুরুষের বীর্য জমা থাকে, এই অঙ্গ বা গ্রন্থিটি খুবই সংবেদনশীল। তাই সামান্য আঘাত পেলে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়। একটি সুস্থ্য পুরুষের অণ্ডকোষটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যেমন এই অণ্ডকোষ দুটি না থাকলে একটি পুরুষ কোন সময় সেক্স করতে পারবে না। আমাদের বাংলাদেশের অধিকাংশ পুরুষ মাঝে মাঝে অণ্ডকোষের ব্যথাতে ভুগে থাকেন। যেকোনো বয়সের পুরুষের অণ্ডকোষের ব্যথা হতে পারে। একে মোটেও অবহেলা করা উচিত নয়, আপনি গুরুত্ব না দিলে সারা জীবনের জন্য সন্তান জন্মদান ক্ষমতা হারিয়ে ফেলবেন সেই সাথে হারিয়ে যাবে যৌনশক্তিও। তাই অণ্ডকোষে যেকোনো ধরনের ব্যথা অনুভূত হলে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

অণ্ডকোষে রোগের লক্ষণঃ
১) অণ্ডকোষে ব্যথা হওয়া
২) অণ্ডকোষের ত্বক ফুলে যাওয়া
৩) অণ্ডকোষ ভারী ভারী বোধ হওয়া
৪) অণ্ডথলি ফুলে যাওয়া
৫) কুঁচকিতে ব্যথা হওয়া
৬) জ্বর হওয়া সহ লিঙ্গে ব্যথা
৭) লিঙ্গ পথে পুঁজ নির্গত হওয়া
৮) প্রস্রাবে ব্যথা ও জ্বালাপোড়া করা
৯) যৌনমিলনের সময় ব্যথা অনুভূত হওয়া
১০) বীর্যপাতের সময় ব্যথা করা

অণ্ডকোষে ব্যথা কেন হয়ঃ
অণ্ডকোষে যে কোন ধরনের প্রদাহ বা সংক্রমণ হলে ব্যথা হতে পারে। সংক্রমণের প্রধান কারণ হলো যৌনবাহিত ব্যাকটেরিয়া। বিশেষ করে গনোরিয়া রোগ। অণ্ডকোষে আঘাত পেলে ব্যথার সৃষ্টি হতে পরে। অণ্ডকোষ প্যাঁচ খেলে এমন সমস্যা হতে পারে। এ ক্ষেত্রে অণ্ডকোষে রক্তসরবরাহ বাধাগ্রস্ত হয়। অণ্ডকোষে প্যাঁচ খেলে অণ্ডথলিতে ব্যথা করে ও ফুলে যায়। অণ্ডকোষে টিউমার হলে মারাত্বক ব্যথা অনুভুত হতে পারে। অণ্ডকোষে টিউমার সাধারনত ১৮ থেকে ৩২ বছর বয়সের মধ্যে বেশি হয়।কিডনিতে পাথরের কারণেও অণ্ডকোষে ব্যথা হতে পারে। যদি আপনার পুরুষাঙ্গ শক্ত হয় কিন্তু বীর্যপাত না ঘটে তাহলে অণ্ডকোষে ব্যথা হতে পারে।

করনীয়ঃ
অণ্ডকোষ একটি পুরুষের অহংকার, আপনার লিঙ্গ যত বড় হোক না কেন, যত শক্ত ও মোটা হোক না কেন তাতে কোন লাভ হবে না যদি আপনার অণ্ডকোষে সমস্যা থাকে। বাংলাদেশ নয়, সারা পৃথিবীতে হাজারো পুরুষ অণ্ডকোষের সমস্যাতে ভুগে থাকেন। অনেকেই অণ্ডকোষের ব্যথাতে বিভিন্ন ধরনের মেডিসিন সেবন করে থাকেন এতে আপনার নিজেরই ক্ষতি হচ্ছে। তবে এর কিছু ঘারোয়া টিপস আছে যা প্রাথমিক অবস্থাতে আপনাকে সাহায্য করতে পারে। আসুন জেনে নেওয়া যাক প্রাকৃতিক টিপস সমূহঃ

দই ও হলুদঃ
এক গ্লাস ঠান্ডা পানি নিয়ে তাতে এক চামচ দই দিয়ে এক চা চামচ হলুদ গুড়ো মিশিয়ে পান করুন।

পান ও মধুঃ
খাটি মধুর সাথে একটি রসাল ও তাজা পান পাতা নিয়ে অণ্ডকোষের ব্যথাযুক্ত স্থানে লাগিয়ে রাখুন।এরপর ২ থেকে ৩ ঘন্টা রেখে দিন, এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

অলিভ অয়েলঃ
প্রতিদিন রাত্রে ঘুমানের পূর্বে ১০ থেকে ১৫ ফোটা অলিভ অয়েল অণ্ডকোষের ব্যথাযুক্ত স্থানে লাগিয়ে রাখুন।

রসুন ও তিল তেলঃ
আধা চা চামচ রসুনের রসের সাথে আধা চা চামচ তিল তেল মিশিয়ে অণ্ডকোষে মালিশ করুন।

মধু ও কর্পূরঃ
মধু ও কর্পূর একত্রে মিশ্রিত করে রাত্রে অণ্ডকোষে মালিশ করুন। তবে হালকা গরম করতে পারেন, বেশি গরম নয়।

উপরোক্ত বিষয়গুলোর মধ্যে যে কোন একটি ব্যবহার করলে আপনার অণ্ডকোষের ব্যথা দূর হয়ে যাবে। প্রতিদিন হালকা কুসুম কুসুম গরম দুধ পান করুন ও মাঝে মাঝে কাচা দুধ দিয়ে অণ্ডকোষ ধুয়ে ফেলুন।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here