আগুনে পুড়ে গেলে করণীয়

3
314
আগুনে পুড়ে গেলে করণীয়

আগুন খুব মারাত্বক তাই শরীরের কোন স্থান আগুনে পুড়ে গেলে শরীরের ত্বক স্বাভাবিক রুপ নিতে পারে না। আগুনে পুড়ে গেলে ত্বকের স্বাভাবিক কোষ নষ্ট হয়ে যায়। তাছাড়া আগুনে পোড়া আ এসিডে পোড়া ক্ষত প্রায় একই রকমের হয়ে থাকে। আজ আগুনে পুড়লে তাৎক্ষণিক করণীয় সমূহ জেনে নিবো।

আগুন বা গরম পানি ও দাহ্য তেল ত্বককে পুড়িয়ে দেয় এবং ত্বক পুড়ে মাংস পেশি প্রচুর পরিমানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই আমদের সর্ব প্রথম করনীয় হলো ক্ষত স্থানে প্রচুর ঠান্ডা পানি ঢালতে হবে। সাধারনত ত্বকের তিনটি স্তর থাকে যা উপরের ত্বক (এপিডার্মিস), মধ্যে স্তরের ত্বক (ডার্মিস) এবং আন্তঃত্বক (এন্ডোডার্মিস)। যে পোড়াতে বাইরের ত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হয় এই ক্ষেত্রে রোগীর ত্বকে হালকা প্রদাহ ও জালাপোঁড়া দেখা দেয়। এছাড়া ত্বক লাল হয় এবং টানটান বা শুষ্ক হওয়ার লক্ষণ দেখা দেয়।

যদি এপিডার্মিস ও ডার্মেসের গভীর পর্যন্ত পুড়ে যায় তাহলে চামড়া কুঁচকে, কালো হয়ে যায় এবং প্রচণ্ড ব্যথা ও প্রদাহ সৃষ্টি হয়। ত্বকের নিচের মাংসপেশি ও রক্তনালী পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাহলে ব্যথা ও প্রদাহের মাত্রা অনেক বেশি হয়ে থাকে।

আগুনে পুড়লে চিকিৎসা সমূহঃ

১। রোগীকে দ্রুত নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে হবে।
২। রোগীর জামা কাপড় খুলে ফেলতে হবে।
৩। আক্রান্ত স্থানে প্রচুর পরিমানে ঠাণ্ডা পানি ঢালতে হবে।
৪। ফ্রেন্স মেরিগোল্ডের নির্যাস ত্বকের ক্ষত এবং প্রদাহ দূর করতে খুবই কার্যকর। তাই যত দ্রুত সম্ভব ক্ষত স্থানে ফ্রেন্স মেরিগোল্ড লাগিয়ে দিতে হবে।
৫। পুড়ে যাওয়া অংশে ঘৃত কুমারীর নির্যাস দিয়ে ধীরে ধীরে প্রলেপ দিতে হবে যা পোড়া দাগ দূর করবে। এছাড়াও ঘৃত কুমারীর নির্যাস জ্বালাপোড়া থেকে মুক্তি দিতে কার্যকরী।
৬। রোগীর জ্ঞান থাকলে ওরস স্যালাইন, ডাবের পানি ও আগের রস অথবা আখের গুড়ের শরবত পান করাতে হবে যাতে শরীরে আয়রনের ক্ষতি পূরণ হয়।
৭। খাঁটি মধু ত্বকের ফ্লুইড লেভেলের ভারসাম্য রক্ষা করে, এন্টিসেপটিক ও ক্ষত পূরণ করতে সাহায্য করে তাই আক্রান্ত স্থানে মধু লাগালে রোগীর ব্যথা দূর হবে।
৮। আক্রান্ত স্থানে ঠাণ্ডা পানি দেয়ার পর সেই স্থানে আলু বেটে তার রস দিয়ে প্রলেপ দিতে পারলে ক্ষত দ্রুত পূরণ হবে।
৯। আক্রান্ত স্থানে পানি ঢালার পর দই দিয়ে প্রলেপ দিলে প্রদাহ দূর এবং ক্ষত পূরণে সহায়তা হয়।
১০। পুড়ে যাওয়ার সাথে সাথে ব্রাশ করা পেষ্ট হালকা করে লাগাতে হবে তাহলে রোগীর যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পাবে। তবে পেষ্ট শুকিয়ে গেলে ক্ষত স্থানে টান টান ভাব আসতে পারে তাই অবশ্যই ক্ষত স্থান ঠান্ডা পানি দিয়ে হালকা ভাবে ভেঁজা রাখতে হবে।

পরামর্শঃ

যে কোন ফার্মেসীতে ডার্মালোজি বা বার্না নামক একটি ২৫ গ্রামের ক্রিম পাওয়া যাবে যার মূল্য মাত্র ৪০ টাকা। তাই পুড়ে যাওেয়ার ২০ থেকে ৩০ মিনিটের মধ্যে এই ক্রিমটি ক্ষত স্থানে ব্যবহার করলে তেমন কোন ক্ষতি হবে না। তবে আগুন, গ্যাসের স্লিন্ডার, গরম তেল থেকে সাবধান এবং আগুনে পোড়া কোন মেডিসিন সেবন করার পূর্বে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করে সেবন করা উচিৎ।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

3 COMMENTS

  1. What a stuff of un-ambiguity and preserveness of valuable experience concerning unpredicted feelings.

  2. Hello! This is my first visit to your blog!

    We are a group of volunteers and starting a new initiative
    in a community in the same niche. Your blog provided us useful
    information to work on. You have done a extraordinary job!

  3. I am really impressed with your writing skills as well as with the layout on your blog.
    Is this a paid theme or did you modify it yourself? Either way keep up the nice quality writing, it’s rare to see a nice blog like this one these days.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here