কাঁচা আমলকি খাওয়ার উপকারিতা, আমলকি খেলে কি হয়?

0
1554
কাঁচা আমলকি

আমলকি সবাই সাধারনত কাঁচা খেয়ে থাকেন। আমলকি তেঁতো ও টক স্বাদের একটি ভেষজ ঔষফি ফল। প্রথমত আমলকি মুখে দিলে কষালো লাগে কিন্তু কিছুক্ষন চিবানোর পরে মিষ্টি স্বাদ অনুভূত হয়। আমলকি একটি ভিটামিন সি জাতীয় এবং এতে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। আমলকির একটি বড় গুণ হলো ফ্রি রেডিকেল বা ক্ষতিকর পদার্থ থেকে শরীর কে মুক্ত রাখে।

কাঁচা আমলকি অনেকে খেতে পারেন না তাদের জন্য উপদেশ হলো শুকনো আমলকি পানিতে ভিজিয়ে রেখে সেই পানি খেলে কাঁচা আমলকির ন্যায় একই উপকারীতা পাওয়া যায়। একজন মানুষ নিয়মিত আমলকি খেলে বুড়িয়ে যাওয়া সমস্যা থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত থাকতে পারে।

কাঁচা আমলকি খাওয়ার উপকারীতা

১) আমলকিতে প্রচুর ভিটামিস সি আছে। আর ভিটামিন সি মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ভূমিকা পালন করে।

২) আমলকিতে প্রয়োজনীয় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় ত্বকের উপরীভাগের জড়তা ও বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে। মানুষ বুড়িয়ে যাওয়ার একটাই কারন ফ্রি র‌্যাডিকেল।

৩) ভিটামিন সি ছাড়াও প্রয়োজনীয় আয়রন, ফসফরাস পাওয়া যায়। যা আমাদের প্রতিদিনে প্রয়োজন হয়ে থাকে। নিয়মিত আমলকি খেলে শরীরে আয়রন ও ফসফরাসের অভাব পূরণ হয়।

৪) আমলকিতে রয়েছে ফাইটো কেমিক্যাল যা চুল, চোখ ও নখের জন্য অত্যান্ত উপকারী। অনেকে চোখে কম দেখে এবং চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যা থাকে, তাই এই জেনারেশন কে মুক্ত করতে আমলকি কার্যকর।

৫) আমলকি মাথার খুসকি দূর করতে সাহায্য করে। নিয়মিত আমলকি বেটে মাথায় লাগালে ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে চিরদিনের মত খুসকি দূর হবে। পাশাপাশি চুল পড়া বা হেয়ারফল মুক্ত হবে।

৬) আমলকিতে অ্যামিনো অ্যাসিড ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় হৃদযন্ত্র ভালো থাকে। প্রতিদিন ১/২ টি করে আমলকি চিবিয়ে খেলে রক্তে কোলেষ্টেরলের মাত্রা কমে যাবে।

৭) আমলকি ব্রণ ও মুখের কালো দাগ দূর করে। গোসলের পূর্বে আমলকি বেটে সামান্য পানি মিশিয়ে মুখে মেখে ৩০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেললে ৭ দিনের মধ্যে মুখের সমস্থ্য ব্রণ ও মুখের কালো দাগ দূর হবে।

৭) আমলকি লিভার সুস্থ্য রাখে এবং সেই সাথে খাদ্য পাঁচক রস উৎপাদনে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এর ফলে খাদ্য হজম প্রকিয়া ভালোভাবে হয় ও হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়।

৮) আমলকি চোখের দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করে। রোদে গেলে চোখ জ্বালাপোড়া করা ভাব সহ রাতকানা ও চোখের ছানিপড়া রোগ আরগ্য করে তোলে।

৯) অনেকের টক ঢেকুর উঠে ফলে শ্বাস প্রশ্বাসে দূর্গন্ধ হয়। তাই নিয়মিত ৭ দিন কাঁচা আমলকি চিবিয়ে খেলে টক ঢেকুর দূর হয় শ্বাস প্রশ্বাসের দূর্গন্ধ দূর হয়।

১০) পেটে অ্যাসিডিটি হলে বুক জ্বালাপোড়া, গলা জ্বালাপোড়া সহ পেট ফুলে যায়। এই সমস্যা দূর করতে আমলকি ভেষজ বা মেডিসিনের ন্যায় কাজ করে।

১১) আমলকিতে বেশ ফাইবার বা আঁশ রয়েছে। আমলকির ফাইবার কোষ্ঠকাঠিণ্য দূর করে এবং পাইলস এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ মূলক কাজ করে।

১২) অনেকে মাসের পর মাস আমাশয় রোগে ভূগে থাকেন। তাছাড়া পায়খানার চাপ আসা সত্বেও পায়খানা পরিষ্কার হয় না। তারা নিয়মিত ২টি করে আমলকি খেলে আমাশয় সহ পেটের সকল রোগ দূর হয়।

সর্বশেষে, শরীরের অপ্রয়োজনীয় ফ্যাট কমাতে আমলকির জুস বা রস সাহায্য করে। জ্বর সহ সানবার্ন ও সানস্ট্রোক থেকে রক্ষা করে। তবে যাদের কিডনিতে কোন রোগ আছে তারা অবশ্যই আমলকি খাওয়া থেকে বিড়ত থাকুন অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আমলকি বা আমলকির জুস, রস সেবন করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here