কফি খেলে কি হয়, কফির উপকারীতা ও অপকারীতা

0
296
কফি

অধিকাংশ মানুষ সকালে খালি পেটে ও সন্ধায় কফি পান করে থাকে। কফিতে প্রচুর ক্যাফেইন আছে যা খুবই উপকারী। তবে খালী পেটে কফি মারাত্বক ক্ষতিকর কারন সকালে সরাসরি ঘুম থেকে উঠে কফি পান করলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যায়। তাই কফি পানের সবচেয়ে সঠিক সময় সকাল ১০ থেকে বেলা ১২ টা পর্যন্ত। কিন্ত অনেকে সন্ধায় কফি পান করে থাকেন এটা ঠিক নয়।

কফির অপকারীতা

ঘুম কম হওয়াঃ একটা কথা সকলেই জানে যে, চা বা কফি খেলে ঘুম কম হয় কথাটা সত্য। প্রতিদিন তিন থেকে চার বার কফি পান করলে স্বাভাবিকের থেকে ঘুম কম হবে। গবেষনার মাধ্যমে জানা গেছে কফি পান কারীদের সাধারনের থেকে দেড় ঘন্টা কম হয়।

শরীরে সুগারের মাত্রা বৃদ্ধিঃ অতিরিক্ত সুগার শরীরের জন্য ক্ষতিকর আর যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের জন্য অব্যশয় নিষিদ্ধ। অনেকে দেখা যায় কফি পান করতে গেলে অতিরিক্ত সুগার মিশিয়ে পান করে থাকে। এতে শরীরে সুগারের মাত্রা বৃদ্ধি হওয়া সম্ভাবনা বেশি থাকে।

মেজাজ খিটখিটেঃ কফি পান করলে শরীরে ক্যাফেইন জমা হয় আর ক্যাফেইন শরীরের অ্যাড্রেনালিন নামক হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি করে। তখন মানুষের মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায় এবং রাগ নিয়ন্ত্রন করা অসম্ভব হয়ে যায়।

গর্ভধারনে সমস্যাঃ নিয়মিত কফি পান করলে সমস্যা হওয়ার কথা না যদি আপনি পরিমান পত কফি পান করেন তবে অনিয়মিত ভাবে কফি পান করলে গর্ভধারনে বাধা সৃষ্টি করে। এবং একটি কথা উল্লেখ্য থাকে যে, গর্ভধারনের পরে কফি পান করা বন্ধ করুন নতুবা সন্তানের শরীর গঠনে সমস্যা হতে পারে।

রক্তচাপ বৃদ্ধিঃ কফি পান করলে রক্তচাপ বৃদ্ধি পায় তাই যাদের হাই প্রেসার বা উচ্চ রক্তচাপ আছে তারা কফি এড়িয়ে চলবেন।

কফির উপকারীতা

মাথা ব্যথাঃ আপনার মাথা ব্যথা করছে চট জলদি এক কাপ কফি পান করুন পাঁচ মিনিটের মধ্যে আপনার মাথা ব্যথা দূর হবে। অনেকে মাথা ব্যথার কারনে চোখে ঝাঁপসা দেখে থাকেন তাদের জন্য কফি খুব উপকারী।

ক্লান্তি বা অবসাদঃ এক নাগারে কাজ করতে গিয়ে আপনি ক্লান্ত হয়ে গেছেন এবং সেই সাথে আপনার মাঝে অবসাদ দেখা দিচ্ছে। এক কাপ কফি পান করুন এতে আপনার শরীরের ক্লান্তি বা অবসাদ দূর হবে।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমঃ কফি পান করলে শরীরের টু টাইপ ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রন করে এবং ঝুঁকি কমায়। তবে সুগার পরিমান মত দিতে হবে এবং ডায়াবেটিস থাকলে সুগার বাদে কফি পান করতে হবে।

মানসিক সমস্যাঃ অনেকে মানসিক সমস্যাতে ভুগে থাকেন তারা নিয়মিত এবং পরিমান মত কফি পান করলে মানসিক সমস্যা রোধ হবে। শরীরে এক প্রকার শক্তি ফিরে পাবেন যা আপনাকে প্রানবন্ত ও উদ্যমী করতে সাহায্য করবে।

সর্বশেষে, যারা হরমোনের সমস্যাতে ভুগে থাকেন তারা কফি এড়িয়ে চলবেন। কফি পান করলে ক্যাফেইনের দ্বারা অনেক হরমোন ক্ষতি করে থাকে এবং বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি থাকে।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here