কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়, যা আপনার জানা দরকার

0
717
কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়
কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় ভোগেন নাই এমন মানুষ পৃথিবীতে নেই বললেই চলে। আপনি হয়তো ওষুধ খেয়েও এই সমস্যার উপযুক্ত সমাধান পাচ্ছেন না। কিন্তু জানেন কি একটি নিয়ম মেনে চললে প্রাকৃতিক উপায়েই নিরাময় করতে পারেন কোষ্ঠকাঠিন্য। তবে চলুন আজ আমরা জেনে আসি।

স্বাস্থ্যকর ফ্যাট জাতীয় খাবারঃ
নারিকেল, বাদাম, কিসমিস, ওলিভ অয়েল, অ্যাভোকেডোর মতো স্বাস্থ্যকর ফল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে পারে। প্রতিদিন সকালে নিয়মিত এক টেবল চামচ করে আখ বা খেজুরের গুড় ঠান্ডা পানির সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন এতে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর হবে।আমরা অনেকেই চা খেতে চাই না কিন্তু এই চা আমাদের অনেক উপকারী তাই নিয়মিত আদা চা খাবেন, এতে আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সমাধান হবে। মেন্থল বা পিপারমেন্ট দেয়া চা শরীরের পাচনতন্ত্রের পেশিগুলোকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। রোজ সকালে এক কাপ করে মিন্ট চা পান করবেন। আলুবোখারাতে প্রচুর ফাইবার থাকায় এটি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে আপনাকে উপশম দেবে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে ডুমুরের সবজি খেতে পারেন।

করনীয়ঃ
১) প্রতিদিন গমের রুটি খাবেন।
২) প্রতিদিন ১টি করে সিঙ্গারা খাবেন।
৩) ইসুব গুলের ভুষি পানিতে মিশিয়ে পান করবেন।
৪) প্রচুর পরিমানে লাল শাক, কলমি শাক ও কচু শাক খাবেন।
৫) নিয়মিত ভাবে পেয়ারা খাবেন, প্রতিদিন ১টি করে খাওয়ার চেষ্টা করবেন।
৬) পেয়ারা না পেলে প্রতিদিন ১টি করে আপেল খাওয়ার অবশ্যয় চেষ্টা করবেন।
৭) শশার জুস খাওয়া খুবই উপকারী, তাই জুস বা আস্ত শশা খোসা সহ খাবেন।
৮) জব অথবা ভুঁট্টার রুটি, পরটা অথবা তেল বিহীন ভেঁজে খাবেন।
৯) সিগারেট পরিহার করুন, অনেকের সিগারেটে কোষ্ঠকাঠিন্যের বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

উপদেশঃ
সারা দিনে প্রচুর পরিমাণ পানি খেতে হবে। কম পানি খাওয়ার জন্য অনেক সময় শরীর শুষ্ক হয়ে যায়। ফলে এই সমস্যা প্রকট হয়ে ওঠে। তাই নিয়মিত ৪ থেকে ৭ লিটার বিশুদ্ধ পানি পান করুন।এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সবার আগে দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত থাকার চেষ্টা করবেন। নিয়মিত ঘুমানোর চেষ্টাও করবেন।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here