গর্ভকালীন সময়ে অবশ্যই যা আপনার জন্য করণীয়

0
481

বিশ্বের প্রায় সকল নারীর জীবনেই একবার হলেও গর্ভধারণের সুযোগ আসে। আর এই সময়টা প্রতিটি নারীর জন্য বেশ কষ্টদায়ক ও অদ্ভুত একটি সময়। খুঁশি থাকে, দুশ্চিন্তাও করে, বিষন্নতায় ভোগে আবার শারীরিক অস্বস্তি উপভোগ করে এবং মানসিক টানাপোড়া সহ ইত্যাদি। আমাদের বাংলাদেশে একটা বিষয় লক্ষ্য করা যায় গর্ভকালীন সময়ে খুব একটা বাহিরে বের হওয়া হয় না। কিন্তু এটা ঠিক নয়। আপনার সুস্থ্যতার জন্য নিয়মিত বাহিরে বের হতে হবে। আপনি নয়টা মাস কাটাবেন তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন সব গর্ভবতীরাই। কিন্তু বাহিরে কতটা বের হন? আসুন জেনে নেয়া যাক গর্ভকালীন অবসর কাটানোর ৫টি উপায় সম্পর্কে।

আপনার পাশে বই রাখুন

আপনি বেশির ভাগ অলস সময় কাটান আর গর্ভকালীন সময়টা যেহেতু সহজে কাটতে চায় না সেহেতু এই সময়টা কাটানোর জন্য বই পড়ুন।

নিয়মিত ঘুমাতে হবে

প্রতিটা মানুষের নিয়মিত পরিমাপ মত ঘুমানো উচিৎ, তাই গর্ভকালীন সময়ে পর্যাপ্ত ঘুম আপনার ও আপনার শিশুর সুস্থ থাকার জন্য দরকার।

ইন্টারনেট ও ওয়েবসাইট ঘাটুন

আপনি যা কিছু চান তার সবকিছুই ইন্টারনেটে পাবেন। তাই গর্ভের সন্তান কিভাবে বেড়ে উঠছে, এ সময়ে কী কী করা উচিত, সন্তানের জন্মের পর কীভাবে যত্ন নিতে হবে ইত্যাদি নানা বিষয় নিয়ে ইন্টারনেটে অসংখ্য সাইট আছে। এসব সাইট গুলো ঘেঁটেই দিনের বেশিরভাগ সময় কাটিয়ে দিতে পারবেন সেই সঙ্গে বৃদ্ধি পাবে আপনার জ্ঞানও।

ফানি মুভি দেখুন

মন ভালো করার এক মহা ঔষধ মুভি বা সঙ্গিত তাই গর্ভকালে মন যত ভালো রাখা যায় ততই ভালো। আর তাই মন ভালো রাখতে প্রচুর মুভি দেখতে পারেন। এই সময়ে অ্যাকশন, থ্রিলার কিংবা ভৌতিক সিনেমা দেখা উচিত নয় একেবারেই। এসব সিনেমা মানসিক চাপ বৃদ্ধি করে যা গর্ভের সন্তানের জন্য ক্ষতিকর।

হাঁটতে বেড়িয়ে যান

গর্ভকালে সবার প্রয়োজন কিছু ব্যায়ামের। সেই সঙ্গে সারাদিন বাসায় বসে না থেকে প্রয়োজন খোলা হাওয়ার বাইরে বের হওয়া। গর্ভকালীন অবসরে বিকেল বেলাটা কাটিয়ে দিতে পারেন বাইরে কিছুক্ষন হাঁটাহাঁটি করে। এতে গর্ভের সন্তান ভালো থাকবে সেই সঙ্গে আপনিও খুব বেশি মুটিয়ে যাবেন না। তবে অতিরিক্ত নয়।

ঠান্ডা পানি পান করতে হবে

গর্ভকালে মানসিক অস্থিরতা দূর করার জন্য এবং শরীর সুস্থ রাখার জন্য ঠান্ডা পানি অতুলনীয়। আপনি যত বেশি পানি পান করবেন আপনার বাচ্চা তত ভালো থাকবে।

ফলমূল ও শাক-সবজি খেতে হবে

আমরা একটা বিষয় ভালো করে লক্ষ্য করে দেখেছি যে অনেক মেয়েরা সবুজ ফলমূল ও শাক-সবজি খায় না। কিন্তু আপনি কি জানেন যে এই শাক-সবজি আপনার বাচ্চার জন্য কতটা উপকারী? তাই নিয়মিত শাক-সবজি খান।

জীবানুমুক্ত থাকতে হবে

আমরা সকলেই জীবানু মুক্ত থাকার চেষ্টা করবো আর গর্ভকালনের সময় তো কোন কথায় নেই। সবসময় ঠান্ডা বিষুদ্ধ পানি দিয়ে গোসল করবেন সেই সাথে ভালো সাবান ব্যবহার করবেন। কোন কিছু খাওয়ার আগে দুই হাত সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে জীবানু মুক্ত করে নিবেন।

ফাষ্টফুড এড়িয়ে চলুন

জাংফুড বা ফাষ্টফুড এটা সবার জন্যই ক্ষতিকর। গর্ভকালীন সময়ে ফাষ্টফুড খেলে গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যা হতে পাবে এবং খাবার গুলো স্বাস্থ্য সম্মত না বলেই অনেক জীবানু বা ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে। তাই এগুলো পরিহার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here