ঘন ঘন প্রস্রাব দূর করার উপায়

0
129
ঘন ঘন প্রস্রাব দূর করার উপায়

ঘন ঘন প্রস্রাব একটি সাধারন বিষয় যা আমাদের প্রতিনিয়ত হয়ে থাকে। মুত্রথলী ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হলে এই সমস্যা হতে পারে। মুলত পুরুষের থেকে নারীরা ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যাতে ভুগে থাকেন। এই রোগ সৃষ্টি হয় পায়ু পথের ব্যাকটেরিয়া দ্বারা। নারীদের পায়ু ও যৌনী খুব কাছাকছি। তাই পায়ু পথের ব্যাকটেরিয়া খুব সহজে যৌনীপথে প্রবেশ করতে পারে। ফলে মুত্রথলীতে ইনফেকশন হয় এবং অতিরিক্ত প্রস্রাবের চাপ সৃষ্টি হয়। নারীদের মুত্রনালী ছোট হওয়ায় ব্যাকটেরিয়া খুব সহজেই মুত্রথলিতে ও কিডনিতে পৌঁছে ইনফেকশন ঘটাতে পারে।

ঘন ঘন প্রস্রাবের সাধারন কিছু লক্ষন

প্রস্রাবের চাপ হওয়া সত্বেও প্রস্রাব না হওয়া, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হওয়া, প্রস্রাবের রং পরিবর্তন হয়ে যাওয়া, প্রস্রাবে দূর্গন্ধ হওয়া, তলপেটে ব্যথা অনুভব করা সহ নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়।

এই সমস্যায় তখনই মানুষ আক্রান্ত হয় যখন মুত্রাশয় এবং তার প্রস্থান টিউব ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হয়। এছাড়াও আরও কিছু কারন আছে যেমন, যৌন মিলনের পরে লিঙ্গ ভালো ভাবে না ধোয়া, সমকামীতা, দীর্ঘ সময় প্রস্রাব ধরে রাখা, গর্ভাবস্থা, মেনোপজ সহ ডায়াবেটিসের কারনে এই সমস্যা সৃষ্টি হয়। আমাদের চারপাশে হাজারো মানুষ আছে যারা যৌনমিলনের সময় পায়ু পথে লিঙ্গ প্রবেশ করায়। এতে পুরুষ খুব দ্রুত নারীর পায়ুর ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হয়।

প্রতিকার

ঘন ঘন প্রস্রাবের চিকিৎসার পূর্বে ঘরোয়া কিছু চিকিৎসা নেয়া উচিৎ। অতঃপর রোগ মুক্তি না হলে তখন ভালো একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। তবে এটা উল্লেখ্য থাকে যে ঘন ঘন প্রস্রাবের চিকিৎসাতে হোমিও মেডিসিন ভালো কাজ দেয়। চলুন ঘরোয়া কিছু টিপস জেনে নেয়া যাকঃ

১) ঘন ঘন প্রস্রাব হলে প্রচুর ডাব খেতে হবে। ডাবে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম শরীরের জন্য অত্যান্ত উপকারী। ডাব ইউরিন পরিষ্কারক ও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রক। ডাব শরীরের পানি শূণ্যতা পূরণ করে, এছাড়া ডাব প্রস্রাবের রং স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

২) ভিনেগারের সাথে ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। ভিনেগার অ্যান্টিবায়েটিক হিসাবে কাজ করে তাই শরীরে থাকা ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৩) চা পাতা পানিতে ফুঁটিয়ে সেই পানি দিয়ে ভালো করে তলপেটে সেঁক দিতে হবে এতে প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া দূর হবে এবং তলপেট ব্যথা করা থেকে মুক্তি পাবেন।

৪) বেকিং সোডা একটি এসিড জাতীয় উপাদান। এসিড জাতীয় কোন কিছু প্রস্রাবের সমস্যা রোধ করে ও ব্যথা দূর করে। তাই ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যার প্রতিকারে ১ চামচ বেকিং সোডার সাথে একগ্লাস ঠান্ডা পানি মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে ও রাতে খেতে পারেন।

৫) টয়লেট ব্যবহারে সবর্দা টিস্যু ব্যবহার করুন। টিস্যুর সাথে স্যাভলত বা অ্যান্টিসেপটিক মিশিয়ে পায়ুপথে ব্যবহার করতে পারেন। এতে পায়ু পথের ব্যকটেরিয়া কোন ভাবে যৌনীপথে প্রবেশ করতে পারবে না।

এছাড়াও আনারস খেতে পারেন কারন আনারসে থাকা উপাদান মুত্রথলীর ব্যাকটেরিয়া দূর করে। ঘন ঘন প্রস্রাব থেকে মুক্তির জন্য প্রচুর পরিমানে পানি পান করতে হবে। প্রচুর পানি পান করলে প্রস্রাবের চাপ বৃদ্ধি পায় এবং অতিরিক্ত প্রসাবের সাথে মুত্রথলী থেকে ব্যাকটেরিয়া বেড়িয়ে যায়।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে এবং এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার ও পোষ্টের নিচে আপনার মতামত দিয়ে সাথেই থাকুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here