তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতা

2
349

আমরা অনেকেই তেঁতুল সম্পর্কে কিছু ভুল তথ্য জানি বা ধারনা আছে। কিন্তু এই সামান্য তম ফলের উপকারীতা বা গুনাগুন চোখে দেখা যেত তাহলে কেউ তেঁতুলের কথা ভুলতো না এবং ভুল দারণা থকতো না। আজ আসুন জেনে নেয়া যাক সেই সব উপকারীতা সমূহ।

তেঁতুলের উপকারীতাঃ

১। যাদের হৃদরোগ আছে তাদের নিয়মিত অল্প পরিমান তেতুল শরবত করে খাওয়া উচিৎ। কারণ এটি হৃদরোগের জন্য মহাঔষধ।
২। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্তনে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যারা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে টেনশনে থাকেন তারা নিয়মিত তেতুল খেতে পারেন।
৩। রক্তে কোলেস্টেরল কমাতে তেতুলের কোন বিকল্প নেই।
৪। শরীরের মেদ কমাতে সাহায্য করে। তবে শরবত করে খেতে হবে।
৫। হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে এক অতুলনীয় কার্যকরী ফল তেতুল।
৬। পেটের বায়ু, হাত পা জ্বালা-পোড়া করা থেকে মুক্তি দিতে তেতুলের শরবত অনেক উপকারী।
৭। যাদের খোশ-পাচঁড়া বা চর্মরোগ আছে তারা তেতুল গাছের বাকল লাগাতে পারেন।
৮। বুক ধড়ফর করা ওঠা ও মাথা ঘোরানো রোগে তেতুল খুবই উপকারী।
৯। আমাশয়, কোষ্ঠবদ্ধতা ও পেট গরমে উপকার করে। রাতে খাবারের ১৫ মিনিট পরে ১ গ্লাস ঠান্ডা পানির সাথে তেতুল মিশিয়ে খেতে পারেন।
১০। যাদের খুশ-খুশ কাশি আছে তারা নিয়মিত ৭ দিন পাঁকা ততুলের আচাঁর বা চূর্ণ খাবেন।
১১। তেতুল পাতার রস কৃমিনাশক ও চোখ উঠা সারায়। ছোট বাচ্চাদের কৃমি ঔষধ না খাইয়ে তেতুল পাতার রস খাওয়াবেন।
১২। মুখের ভিতরে বা ঠোটের কোনায় ঘা হলে তেতুলের পানি দিয়ে কুলি করলে দ্রুত সেরে যায়।
১৩। ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় সেই সাথে তেতুল খিদে বাড়ায় বমি বমি ভাব দূর করে।
১৪। তেতুলের পাতা ম্যালেরিয়া জ্বর, বাত ও জয়েন্টের ব্যথা দূর করতে কার্যকরী।

পরিশেষে, আমাদের চারপাশের সকল ফলমূল আমাদের সু-স্বাস্থ্য বিকাশে এক অপরিসীম ভূমিকা রাখে। তার মধ্যে তেঁতুল একটি অন্যতম ফল। একটা কথা মনে রাখবেন, পৃথিবীতে যা কিছু সৃষ্টি কর্তা আমাদের জন্য সৃষ্টি করেছেন তা সবই মানব জাতির কল্যানের জন্য।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here