দাঁত ব্যথা হলে করনীয়, দাঁত ব্যথা থেকে মুক্তির উপায়

0
921

মানুষের উপরের ও নিচের চোয়ালের দুই সারিতে মোট ৩২টি দাঁত থাকে। এর যেকোনো একটিতে অথবা মাঢ়ি বা চোয়ালে ব্যথা হলে তাকে দাঁত ব্যথা বলা হয়। এটি বিভিন্ন কারণে হতে পারে। সাধারনত আমাদের দেশে এই সমস্যা বেশী দেখা যায় তার কারন দাঁত নিয়ে অবহেলা।

দাঁত ব্যাথার কারণ

দাঁত ব্যথার প্রধান কারণ হলো ডেন্টাল ক্যারিজ বা দাঁত ক্ষয় রোগ। দাঁত ক্ষয় রোগে সাধারণত দাঁতের কোনো অংশে গর্ত হয়ে যায় ও দাঁত ব্যথা করে। দাঁত ব্যথার অন্যান্য কারণগুলো হচ্ছে আক্কেল দাঁতের সমস্যা, মাঢ়িতে ইনফেকশন, পুঁজ হওয়া, আঘাতের কারণে দাঁত ভেঙে যাওয়া, দাঁতে ক্যারিজ হওয়া, মাঢ়ির শিড়া অকার্যকর সহ ইত্যাদি।

দাঁত ব্যথার প্রাকৃতিক ভাবে করণীয়

দাঁত ব্যথা করলে আপনি নিজেই ঘরে বসে ব্যথা কমিয়ে ফেলতে পারবেন। নিরাপদ প্রাকৃতিক ব্যথা নিরোধক দিয়ে দাঁত ব্যথা কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব। আসুন দেখে নেয়া যাক প্রাকৃতিক উপায়ে দাঁত ব্যথা কমানোর উপায়গুলো।

১. গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে কুলি করতে থাকুন যতক্ষণ সম্ভব। দাঁত ব্যথা কমে যাবে।
২. ভ্যানিলা ভিজিয়ে রাখা পানি তুলায় ভিজিয়ে দাঁতে ধরে রাখুন। দাঁত ব্যথা কমে আসবে।
৩. আপেল সাইডার ভিনেগার তুলায় লাগিয়ে দাঁতের সাথে ধরে রাখলে ব্যথা কমে আসে।
৪. আক্রান্ত দাঁত দিয়ে একটুকরো আদা চিবিয়ে নিন।
৫. রসুন থেঁতো করে লবণ দিয়ে দাঁতের গোঁড়ায় চেপে রাখুন। দাঁত ব্যাথায় আরাম পাবেন।
৬. চিনি ও দুধ ছাড়া গরম চায়ের লিকার খান। দাঁত ব্যথায় সাময়িক আরাম পাবেন।
৭. লবঙ্গের তেলের সাথে এক চিমটি গোলমরিচ গুড়ো মিশিয়ে ব্যথাযুক্ত দাঁতের গোড়ায় লাগাতে হয়। এতে বেশ ভালো ফল পাওয়া যায়।
৮. সরিষার তেলের সাথে এক চিমটি লবন মিশিয়ে আক্রান্ত দাঁতের গোড়ায় ডলে দিতে হয়।
৯. কয়েক ফোঁটা লেবুর রস আক্রান্ত দাঁতে দিলে দাঁতব্যথা কমানো যায়।
১০. এক টুকরা তাজা পেঁয়াজ আক্রান্ত মাড়ি বা দাঁতে রেখে দাঁতব্যথা কমানো সম্ভব।
১১. ভালো পেষ্ট দাঁতের গোড়াতে লাগিয়ে রাখলে ব্যথা কমে যাবে।
১২. পেয়ারার কচি পাতার রস দাঁতে লাগিয়ে দিলে ব্যথা কমে যাবে।

পরিশেষে, প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে দাঁত ব্রাশ করে ঘুমাতে যান। সকালের নাস্তার পরে আবার দাঁত ব্রাশ করুন। দাঁত থাকতে দাঁতের মূল্য না বুঝলে পরে আফসোস করতে হবে। ভালো মানের ব্রাশ ও পেষ্ট ব্যবহার করুন। বছরে একবার হলেও দাঁত স্কেলিং করান। এছাড়াও যদি দাঁত ব্যথা না কমে তাহলে ভালো একজন দাঁতের ডাক্তারের কাছে যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here