দাদ থেকে মুক্তির প্রাকৃতিক উপায়

0
521

দাদ খুব মারাত্বক একটি রোগ, এটি চামড়ার একটি সংক্রমণ। ভাইরাসের আক্রমণে এই সংক্রমণ হয়ে থাকে। সাধারণভাবে দেহের নানা অংশের চামড়া, পা, নখ ও মাথার চামড়ায়, হাটু ও পায়ের রানে দাদ লক্ষ্য করা যায়।

লক্ষণঃ

শরীরের যে অংশে দাদ হয় সেই অংশটিতে গোলাকার দাগ হয়ে যায়। সময়মতো চিকিৎসা না করা হলে আরও বেশি করে ছড়িয়ে পড়তে পারে এটি। চামড়া আর্দ্র হয়ে পড়লে দাদের মতো চামড়ার নানা সমস্যায় পড়তে হয়।

চিকিৎসাঃ

১) ভিনেগার বেশ কিছুদিন ব্যবহার করলে দাদ দূর হবে।
২) কাঁচা পেঁপে দেহের উপরের মরা চামড়াকে সরিয়ে দেয়। পেঁপে বেটে তা দাদের জায়গায় লাগান।
৩) দাদ কমাতে লবন-জলও দারুণ কাজ দেয়। ক্ষতিগ্রস্ত জায়গায় লবন-জল দিনে ৩ বার করে লাগান।৪) নারকেল তেল যদি দাদের জায়গাতে লাগানো হয় তাহলে তা দাদকে সারিয়ে ফেলতে অনেকটাই সাহায্য করে। বিভিন্ন ধরণের ত্বকের অ্যালার্জিকে সারিয়ে তুলতে নারকেল তেল খুবই কার্যকারী।
৫) হলুদ দাদ থেকে মুক্তির আরেকটি সহজ উপায়ে। কাঁচা হলুদের পেস্ট বানিয়ে সেইটা দাদের উপরে লাগালে সেইটা দাদকে সারিয়ে তোলে।
৬) কর্পূর দ্বারা আক্রান্ত স্থান খুব দ্রুত সারিয়ে তোলা সম্ভব। বেশ কয়েকদিন ধরে দাদে কর্পূর লাগানোর পর আর দাদের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়না।
৭) পুদিনা পাতা বেটে তার একটি পেস্ট বানিয়ে তার মধ্যে লেবুর রস মিশিয়ে দাদ সংক্রামিত জায়গাগুলিতে ভালো করে লাগাতে হবে।
৮) রসুনের মধ্যে আ্যান্টি ফাঙ্গাল গুন আছে। তার ফলে রসুন দাদকেও সারিয়ে তোলে। রসুন বেটে বা সরু করে রসুন দাদের উপর লাগালে দাদ দূর হয়।
৯) ঘৃতকুমারীর রস দাদের অংশে লাগাতে হবে। কয়েক দিনের মধ্যে দেখা যাবে যে দাদ একেবারে সেরে উঠেছে।

উপদেশঃ

আমাদের শরীরে ঘাম এবং ময়েশ্চার বেশী হলে তা আমাদের শরীরের ফাঙ্গাল ইনফেকশনের সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে তোলে। তাই ঘাম থেকেও দূরে থাকতে হবে। ঘাম থেকে দূরে থাকতে হলে ঘাম হওয়ার সাথে সাথে তা মুছে ফেলতে হবে।

পরিশেষে, এভাবে আপনি যদি দাদের প্রাথমিক অবস্থায় চেষ্টা চালিয়ে যান তাহলে ঘরোয়া উপায়ে দাদের হাত থকে অতি সহজে মুক্তি পেতে পারেন। এর পরেও যদি দাদ থেকে মুক্তি না মেলে তাহলে চিকিৎসকের সরণাপন্ন হবেন।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here