পেঁয়াজের গুনাগুন, পেঁয়াজের নান রকম স্বাস্থ্য উপকারীতা

2
161
পেঁয়াজ

পেঁয়াজ এমন একটি উদ্ভিদ যা প্রতিদিনের রান্নার কাজে ব্যবহৃত হয়। এই উদ্ভিদটি শুধু রান্নার কাজে নয়, সালাদের সাথে, সিঙ্গারার সাথে, ছোলা সিদ্ধের সাথে, মুড়ির সাথে ও ভাতের সাথে কাঁচা পেয়াজও খেয়ে থাকেন অনেক মানুষ। আপনি কি কখনো ভেবেছেন এই উদ্ভিদটির গুনাগুন? পেঁয়াজে আমরা যা পেয়ে থাকি তা হলো ৮৬% পানি, ১.২% প্রোটিন, ১১.৬% শর্করা, ০.১৮% ক্যালসিয়াম, ০.০৪% ফসফরাস এবং ০.৭% লৌহ। এছাড়া পেঁয়াজে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ, বি ও সি। পেঁয়াজ শরীরের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখে, রক্ত জমাট বাঁধা রোধ করে, হাঁপানির সমস্যা রোধ করে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ রাখতে সাহায্য করে। আজ আমরা জানবো, পেঁয়াজের নানা রকম গুণাগুন ও উপকারীতাঃ

উপকারীতা ও গুনাগুনঃ

১) পেঁয়াজে প্রচুর পরিমাণে সালফার থাকে যা শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী। পেঁয়াজ ভিটামিন সি বৃদ্যমান থাকার বারনে শরীরকে বিশুদ্ধ করে, আর্সেনিক থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

২) পেঁয়াজ রক্তকে জমাট বাঁধতে বাধা গ্রস্থ করে ফলে রক্তের কোলেস্টেরল কমে যায়। তাই পেঁয়াজ হৃৎপিণ্ডের জন্য অত্যন্ত উপকারী। পেঁয়াজ ধমনী, হৃদরোগসহ নানা রকম রোগ প্রতিরোধ করে।

৩) হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি গবেষণায় দেখা গেছে পেঁয়াজের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট কোষের ডিএনএ কে ক্ষতির থেকে বাঁচিয়ে ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। এছাড়াও পেঁয়াজের রস টিউমার সেল কে ধ্বংস করে।

৪) পেঁয়াজ যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে থাকে। প্রতিদিন একটি করে পেঁয়াজ খেলে যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। নিয়মিত পেঁয়াজ খেলে যৌন ক্ষমতা এমন ভাবে বৃদ্ধি পাবে যা যৌন চিন্তা সর্বদা আপনার মাথায় ঘুরতে থাকবে।

৫) একটি পেঁয়াজের কিছু অংশ সারা রাত বাতাবী লেবুর রসে ভিজিয়ে রাখুন এবং সকাল বেলা খালি পেটে সেবন করলে নাকের রক্ত বন্ধ হয়ে যাবে।

৬) পেঁয়াজের রসের সাথে চিনি মিশিয়ে খেলে কিডনির সকল রোগ মুক্ত হয় এবং প্রসাব স্বাভাবিক থাকে। তবে চিনির থেকে ভালো হবে মধু মিশিয়ে খেতে পারলে।

৭) নিয়মিত ৭ দিন পেঁয়াজের রসের সাথে আদা এবং তুলসি পাতা বেটে ভর্তা করে খেলে কাঁশি দূর হবে এবং দীর্ঘদিন ধরে বুকে কফ জমে থাকলে তা পরিষ্কার হয়ে যাবে।

৮) বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং গবেষণা কেন্দ্রে পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে, চুল ও দাড়ির জন্য পেঁয়াজের রস খুবই উপকারী। যাদের মুখে দাড়ি কম বা দাড়ি ঘন হয় না তারা গোসলের ৩০ মিনিট পূর্বে পেঁয়াজের রস মাখুন, ৭দিনের মধ্যে আপনি নিজেই চমকে যাবেন। এছাড়াও মাথায় নতুন চুল গজাঁতে পেঁয়াজ সাহায্য করে। পেঁয়াজের রস চুলের গোড়া শক্ত করে এবং চুল ঘন করতে সাহায্য করে।

৯) নিয়মিত পেঁয়াজ চিবিয়ে খেলে দাঁতের মাড়ির ক্ষয়, রক্তপড়া এবং মুখের ভেতরের ভাইরাস জনিত সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

১০) কানের যে কোন ব্যাথাতে পেঁয়াজের রস উপকারী। কানে ব্যথা হলে পেঁয়াজের রসের সাথে খাটি সরিষার তেল মিশিয়ে কানে সামান্য দিলে কানের ব্যথা দূর হবে।

১১) জ্বর কমাতে বিশেষ ভুমিকা পালন করে থাকে পেঁয়াজ। হাত ও পায়ের তালুতে এবং কপালে পেঁয়াজের রসের সাথে নারিকেল তেল মিশিয়ে লাগিয়ে দিলে জ্বর কমে যাবে।

১২) যাদের মাথায় উঁকুন আছে তারা ৩ থেকে ৫ দিন পেঁয়াজের রস মাথায় দিতে পারে এতে আপনার মাথার উঁকুন দূর হবে এবং পাশাপাশি চুল পরা রোধ করতে সাহায্য করবে।

১৩) যে সকল মেয়েদের মাসিকের সময় পেটে প্রচুর ব্যথা হয় তাদের উচিৎ মাসিক শুরু হলে প্রতিদিন ২ টি করে পেঁয়াজ খাওয়া। অবশ্য অনেক মেয়ে এটা পছন্দ করে না কিন্তু আপনি একদিন ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

১৪) মুখের যে কোন কাল দাগ দুর করতে কাচা হলুদের সাথে পেয়াজের রস মিশ্রিত করে কালো দাগের উপর লেপে দিন, ১ সপ্তাহে কালো দাগ দূর হবে।

১৫) কোন ব্যাক্তি মদ্য পান করলে যদি অতিরিক্ত নেশাগ্রস্থ হয়ে যায় এবং মাতলামি করে তাহলে ১টি পেঁয়াজ খাওয়ালে ১০ মিনিটের মধ্যে নেশা কেটে যাবে।

সর্বশেষেঃ পেঁয়াজ শুধু একটি সবজি বা উদ্ভিদ নয়, এটি একটি মহা ঔষধ। পেঁয়াজকে বায়ু-নাশক বলা হয়। তাই প্রতিদিনের খাবারে পেঁয়াজ রাখুন তবে কাঁচা খাওয়ার চেষ্টা করুন। কারন পেঁয়াজ রান্না করে খেলে গুনাগুন নষ্ট হয়ে যায়। উল্লেখ্য থাকে যে, কাঁচা পেঁয়াজ খেলে মুখে দূর্গন্ধ হয় কিন্তু তার পরেও পেঁয়াজ খুবই উপকারিী।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

2 COMMENTS

  1. পেয়াজ ব্যবহার করে আমার মুখের দাড়ি অনেক ঘন হয়েছে

    • হাসান শেখ, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here