বৃষ্টির পানির উপকারীতা, বৃষ্টির পানি ত্বকের জন্য অনেক উপকারী

0
616
বৃষ্টির পানি

বৃষ্টির পানি পৃথিবীর সবচেয়ে বিশুদ্ধ পানি। অস্ট্রেলিয়ার একটি গবেষণায় রিপোর্টে পাওয়া গেছে, বৃষ্টির পানি পান করা সবচেয়ে নিরাপদ। মাটি বা পাথরে থাকা মিনারেলস আর বর্জ্য, বৃষ্টির পানিতে থাকে না। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ এই কথা বিশ্বাস করে না। ছোট বেলা গ্রামের বৃদ্ধরা বলতো বৃষ্টিতে যত পারো ভিজতে থাকো তবে সর্দি বা ঠান্ডা লাগিও না। কথা টা আসলেই সত্য কিন্তু এখন আমরা বৃষ্টিতে ভিজতে গেলে সবাই নিধেষ করেন। তার একটাই কারন সর্দি, কাশি বা ঠান্ডা। আসুন জেনে নেয়া যাক বৃষ্টির পানির কিছু গুনাগুন।

উপকারীতা সমূহঃ
১) বৃষ্টির পানিতে কোন প্রকার দূষিত পদার্থ থাকে না বিধায় বৃষ্টির পানি সম্পূর্ণ বিশুদ্ধ।
২) বৃষ্টির পানিতে থাকে অ্যালকালাইন পিএইচ যা অ্যাসিডিটি কমায় এবং হজমশক্তি বৃদ্ধি করে।

৩) পাকস্থলীতে অ্যাসিডিটি বা আলসার থাকলে বৃষ্টির পানি ওষুধের কাজ করে।
৪) বৃষ্টির পানি ত্বকের জন্য অনেক উপকারী কারন বৃষ্টির পানিতে কোন প্রকার কেমিক্যাল থাকে না তাই, সুস্থ ত্বক পেতে হলে বৃষ্টির পানি ব্যবহার করুন।
৫) বৃষ্টির পানি খুবই কোমল তাই চুলে ব্যবহার করলে চুল খুব নরম ও কোমল হয়।
৬) বৃষ্টির পানি ত্বকে থাকা বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া ও জীবানু দূর করে ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। যেমন, ঘামাচি, চুলকানি, দাদ, খোসপাঁচড়া সহ প্রভৃতি।

৭) বৃষ্টির পানিতে ক্ষার থাকে না বিধায় সাবান বা ডিটারজেন্টের চেয়ে অনেক ভালো ও সুন্দর কাজ করে। তাই বৃষ্টির পানি দিয়ে কাপড় ধুলে কাপড়ের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।
৮) বৃষ্টির পানি দিয়ে গৃহস্থালীর বিভিন্ন তৈজসপত্র ধুলে এদের উজ্জ্বলতা বাড়ে। নতুনের মত চকচক করে।
৯) বৃষ্টির পানি পশুপাখি, কীটপতঙ্গের জন্য ও বিশেষ উপকারী। এসব প্রাণী ও বৃষ্টির পানি খেতে পছন্দ করে।
১০) বৃষ্টির পানি মুখের ব্রনের জন্য উপকারী, তাই প্রতিদিন বৃষ্টির পানি দিয়ে মুখ ধুলে ব্রন থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

তাই আসুন সকলে পানির অপচয় না করে পানি সংরক্ষন করি। বৃষ্টির পানি অনেক দিন পর্যন্ত ধরে রাখা যায় তাই যে কোন বাসন পত্রে বৃষ্টির পানি ধরে রাখুন এবং তার সঠিক ব্যবহার করুন।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here