ব্রাউন সুগার কি স্বাস্থ্যের জন্য বেশি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ?

0
346
ব্রাউন সুগার কি

সাদা চিনি নাকি ব্রাউন চিনি? বর্তমানে বাংলাদেশে ৭৬ শতাংশ মানুষ সাদা ধবধবে চিনি খেয়ে খাকে। ব্রাউন সুগার তেমন পাওয়া যায় না বিধায় মানুষ ব্রাউন সুগার কি সেটা ভুলেই গেছে প্রায়। সকালের নাস্তা থেকে শুরু করে রাতের খাবার খাওয়া পর্যন্ত যত খাবার খাওয়া হয় তার মধ্যে ১২ শতাংশ মানুষ চিনি খেয়ে থাকে। আরো উল্লেখ্য থাকে যে, বিজ্ঞানীরা মরণ ব্যাধি ক্যান্সারের যে ১০ টি কারণ চিহ্নিত করেছে তার মধ্যে একটি হচ্ছে রিফাইন করা সাদা চিনি। চিনির যেমন অপকারীতা আছে ঠিক তেমনি উপকারীতাও আছে। তবে ব্রাউন চিনি স্বাস্থ্যের জন্য অধিক বেশি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ।

ব্রাউন সুগার কাকে বলে?

আখের রস থেকে কোন প্রকার পরিশোধন ছাড়া সর্ব প্রথম যে চিনি তৈরী করা হয় তাকে ব্রউন চিনি বলা হয়। ব্রাউন চিনি থেকে সাদা চিনি উৎপন্ন করা হয়। ব্রাউন চিনিকে তিন ধাপে পরিশোধন করে বিভিন্ন কেমিক্যাল ব্যবহার করে ধবধবে সাদা চিনি তৈরী করা হয়।

ব্রাউন সুগারের গুনাগুণ

ব্রাউন সুগারে পুষ্টিগুণ বেশি যেমন ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও আয়রন। মুলত আমরা সাদা চিনি খেয়ে থাকি তাই এই পুষ্টিগুণ সাদা চিনিতে পাওয়া যায় না। কারন ব্রাউন চিনি এই পুষ্টিগুণকে রিফাইন করে সাদা চিনি তৈরী করা হয়।

ইউ.এস.এ ডিপার্টমেন্ট অফ এগ্রিকেশন থেকে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলেছে, ১চা চামচ বাদামী চিনিতে ১৭ কিলো ক্যালোরি আছে এবং ১চা চামচ সাদা চিনিতে ১৬ কিলো ক্যালরি আছে। তাই সাদা ধবধবে চিনির থেকে ব্রাউন চিনি খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অধিক উপকারী।

ব্রাউন চিনিতে ক্যালসিয়ামের মাত্রা থাকে ১৬০.৩২ যা পরিশোধিত চিনিতে ১.৫৬ থেকে ২.৬৫ ভাগ থাকে। পটাশিয়াম ব্রাউন চিনিতে ১৪২.৯ ভাগ যা পরিশোধিত চিনিতে ০.৩২ থেকে ০.৩৫ ভাগ থাকে। ফসফরাস ব্রাউন চিনিতে ২.৫ থেকে ১০.৭৯ ভাগ যা পরিশোধিত চিনিতে ২.৩৫ ভাগ থাকে। আয়রন ব্রাউন চিনিতে ০.৪২ থেকে ৬ ভাগ যা পরিশোধিত চিনিতে ০.৪৭ ভাগ থাকে। ম্যাগনেশিয়াম দেশি চিনিতে ০.১৫ থেকে ৩.৮৬ ভাগ যা পরিশোধিত চিনিতে ০.৬৬ থেকে ১.২১ ভাগ থাকে। এবং সোডিয়াম ব্রাউন চিনিতে ০.৬ ভাগ যা পরিশোধিত চিনিতে ০.২ ভাগ থাকে।

এখন আপনারা নিজেরাই বুঝতে পারছেন যে সাদা ধবধবে চিনির থেকে ব্রাউন চিনি কত বেশি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। তবে চিনির পরিমান সবারই একটু কম খাওয়া উচিৎ। চিনি অতিরিক্ত খেলে শরীরে রক্তে সুগারের পরিমান বেড়ে যায়।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন এবং সেই সাথে এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here