মালটার উপকারীতা ও পুষ্টিগুণ

0
248
মালটার উপকারীতা

মালটা সারা বছর পাওয়া যায় এমন একটি ফল। মালটা মুলত কমলা লেবুর মত একটি রসালো ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি উৎকৃষ্ট ফল। যা সব রকম বয়সের মানুষের জন্য অত্যান্ত উপকারী। মালটা অনেকের কাছেই খুবই প্রিয় একটি ফল। পরিবারের শিশুরাও এটি খেতে বেশ বেশি পছন্দ করে। মালটাতে রয়েছে ভিটামিন সি, ভিটামিন বি, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ফসফরাস এবং চর্বিমুক্ত ক্যালরি। এগুলো ছাড়াও মালটাতে আর অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে। চলুন মালটার কিছু পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

মালটার পুষ্টিগুণ

মালটায় প্রচুর পরিমাণে ফ্লামনয়েট থাকে যা শরীরের জন্য প্রয়োজনী নিউট্রিসাস সরবরাহ করে। শুধু তাই নয়, মালটাতে প্রচুর পরিমাণে মিনারেলসও আছে।

মালটায় প্রচুর ভিটামিন সি পাওয়া যায় যা আমাদের শরীরে ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। মালটা আমাদের শরীরের কোলন ক্যান্সার এবং ব্রেস্ট ক্যান্সারের সেল প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে।

মালটা একটি ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ফল তাই মালটা আমাদের শরীরের ত্বক ভালো রাখে। ত্বকের বাধ্যর্ক রোধ করে এবং ত্বকের কোথাও কেটে গেলে ক্ষত সেরে তুলতে মালটা বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

শীতকালে ঠোঁট ফাটা, হাত ও পায়ের তালু ফেটে যাওয়া রোধ করে মালটা। মালটা দাঁত, চুল, ত্বক, নখের পুষ্টি জোগান দিতে সবর্দা উৎকৃষ্ট। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা নিয়মিত মালটা খায় তাদের দাঁতের ক্ষয় রোগ অনেক কম হয়।

মালটা মুখের ঘাঁ সেরে তুলতে সাহায্য করে। তাছাড়া মালটা ঠোঁটের কোনায় হওয়া ঘাঁ ও মুখের লালার জীবানু দূর করতেও সাহায্য করে। যাদের মুখে লালা কম তাদের মুখে রোগ জীবাণু বেশি তাই নিয়মিত মালটা খেলে মুখে লালা উৎপন্ন হবে।

মালটা পাকস্থলীকে পাচঁক প্রক্রিয়া স্বাভাবিক ভাবে সম্পাদন করতে সাহায্য করে। নিয়মিত মালটা খাওয়ার অভ্যাস পাকস্থলীর আলসার ও কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে রক্ষা দেবে। পাকস্থলীকে সকল প্রকার সমস্যা থেকে মুক্ত রাখবে।

প্রতিদিন একটি করে মালটা খেলে আপনার দৃষ্টিশক্তি ভাল থাকবে। কারণ মালটাতে রয়েছে ভিটামিন সি, এ এবং পটাসিয়াম। এই ভিটামিনগুলো চোখের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে বেশ উপকারী।

মালটাতে প্রচুর পরিমাণে ফ্লামনয়েট থাকায় হজমে সাহায্যকারী এসিড বেশি মাত্রায় বাইরে বের করে দিতে সাহায্য করে। চিকিৎসকেরা সচারচার হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি করার জন্য মালটা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

আমরা সবসময় কোল্ডড্রিংকস পান করে থাকি কিন্তু এই কোল্ডড্রিংকস আমাদের কিডনি ও লিভারের কার্যক্ষমতা হ্রাস করে দেয়। অনেকের জন্ডিস হয়ে থাকে আর জন্ডিস একটি লিভারের রোগ। তাই কোল্ডড্রিংকস বাদ দিয়ে নিয়মিত মালটা বা জুস খেলে কিডনি ও লিভারের কোন ক্ষতি হবে না বরং কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে সেই সাথে জন্ডিস দূর হবে।

মালটাতে প্রচুর ম্যাগনেসিয়াম থাকার কারনে ব্লাড প্রেসার বা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ থাকে। যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের জন্য মালটা একটি অ্যান্টিবায়েটিক হিসাবে কাজ করে থাকে এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকার কারনে অতিরিক্ত চবি, মেদ এবং ওজন কমাতেও সহায়তা করে।

বিঃদ্রঃ নিয়মিত পোষ্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে এবং এই পোষ্টটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার ও পোষ্টের নিচে আপনার মতামত দিয়ে সাথেই থাকুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here