শিশুর দাঁতের ক্ষয়রোগ দূর করার উপায়

0
126
শিশুর দাঁতের ক্ষয়রোগ

শিশুর দাঁতের ক্ষয়রোগ দূর করতে হলে প্রথমে বলতে হয় একটি পূর্ণ বয়স্ক মানুষ এর একটি শিশু অনেক পার্থক্য। শিশুর দাঁতের সংখ্য ২০ টি কিন্তু স্থায়ী পূর্ণ বয়স্ক মানুষের দাঁতের সংখ্যা ৩২টি। পূর্ণ বয়স্ক মানুষ যতটা নিজের প্রতি যত্নবান হতে পারেন ততটা যত্নবান একটি শিশু হতে পারে না। প্রায় সব জায়গাতে দেখা যায় বাবা মায়ের দাঁত অনেক সুন্দর কিন্তু শিশুর দাঁত ক্ষতিগ্রস্থ। একটি শিশুর দাঁতকে কি ভাবে সুন্দর ও রোগ মুক্ত রাখা যায় সেই বিষয়ে আজ জেনে নেয়া যাক।

শিশুর দাঁত ক্ষয় মুক্ত রাখার উপায়

প্রথমত শিশুকে সর্বদা বুকের দুধ খাওয়ানো উচিৎ। প্রাকৃতিক বুকের দুধ পান করালে শিশুর দাঁত হয়ে ওঠে সুন্দর ও ক্ষয় মুক্ত।

শিশু বেড়ে ওঠার সাথে সাথে প্রোটিন যুক্ত খাবার খাওয়াতে হবে। কারন ছয় মাস পরে থেকে শিশুর প্রয়োজন হয় প্রোট্রিন খাবার।

সকালে দুপুরে ও রাতে নিয়মিত খাওয়ানোর অভ্যাস করুন। অনেকের মাঝে দেখা যায় সব সময় শিশু কোন না কোন কিছু খেতে থাকে। এতে দাঁতে জীবাণুর আক্রমণ হয়ে থাকে।

অনেক বাবা মায়েরা রাতের সময় শিশুকে ফিডার জাত করন দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করে। রাতে শিশু ঘুমানোর সময় মুখে লালা কম উৎপন্ন হয় ফলে ফিডার দুধ রিফ্লেক্স হতে পারে না। তাই মুগ গহ্ববরে দুধ বেধে থাকে, আর এই দুধ সারা রাত পচঁন ক্রিয়া করে দাঁতে ক্ষয় রোগ সৃষ্টি করে।

অনেকে মনে করেন শিশু খাবার খেলে সেগুলো মুখে বা দাঁতে লেগে থাকে না। এই ধারনাটি ভুল। একটি পূর্ণ বয়স্ক মানুষ খাবার খেলে যেমন মুখে ও দাঁতে লেগে থাকে ঠিক তেমন ভাবে লেগে থাকে। তাই প্রতিবার খাবারের পরে শিশুর মুখ ও দাঁত পরিষ্কার করাতে হবে।

শিশুরা চিপস, আইসক্রিম, চকলেট সহ নানা রকম খাবার খেয়ে থাকে। যা দাঁতের ক্ষয় রোগ সৃষ্টি করে থাকে। যদিও শিশুরা নাছরবান্দা, কিন্তু দাঁত ভালো রাখতে হলে অবশ্যই চিপস, আইসক্রিম বা চকলেট খাওয়ার পরে ব্রাশ করানোর চেষ্টা করুন।

শিশুর দুধ দাঁতের যত্ন সব বাবা মায়েরা কম নিয়ে থাকে। কিন্তু প্রতিটা বাবা মায়ের উচিৎ দুধ দাঁতের পরিপূর্ণ যত্ন নেওয়া। কারন আপনি যখন দুধ দাঁতের যত্ন নিবেন তখন শিশুর মুখে রোগ জীবাণু কম হবে। মুখ পরিষ্কার রাখার কারনে লালার ‍উৎপত্তি সঠিক ভাবে হতে থাকবে। ফলে যখন দুধ দাঁত উঠে পূর্ণ দাঁত উঠবে তখন দাঁতে ক্ষয় রোগ কম হবে।

একটি পূর্ণ বয়স্ক নারী পুরুষের দিনে দুই বার ব্রাশ করা উচিৎ। কিন্তু জাপানের একটি দন্ত চিকিৎসালয়ে বলা হয়েছে যে, একটি শিশুর দাঁত ভালো ও ক্ষয়রোগ মুক্ত রাখার জন্য অবশ্যই প্রতিবার খাবারের পরে ব্রাশ করা উচিৎ। সেইক্ষেত্রে বাংলাদেশে ব্রাশ করানো হয় না বললেই চলে।

কিছুদিন পূর্বে স্বাস্থ্য বার্তার অফিসে একটি শিশুকে নিয়ে একজন বাবা মা আসেন। তাদের সমস্যা হলো শিশুর বয়স চার বছর অথচ শিশুর মুখের প্রতিটা দাঁত ক্ষয় রোগে আক্রান্ত। এছাড়াও ভালো ভাবে পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায় শিশুটির দাঁতে মাংস বেধে আছে। তাহলে আপনারা বিষয় টি লক্ষ্য করুন, যে শিশুটির দাঁতের যত্ন নিলে দাঁতে ক্ষয়রোগ হতো না। এমনকি শিশুকে চিকিৎসা করানোর জন্য চেষ্টা করছে অতচ সেই দিনটিতেও শিশুর দাঁত অপরিষ্কার।

অতএব, একটি শিশুকে সঠিক সুন্দর ও ক্ষয়রোগ মুক্ত দাঁত দান করতে পারে একমাত্র তার বাবা মা। নিয়মিত দাঁত পরিষ্কার করালে আজ হয়তো হাজার হাজার শিশু দাঁতের ক্ষয়রোগে আক্রান্ত থাকতো না।

সর্বশেষে, শুধু শিশু নয় যে কোন বয়সের মানুষের দাঁতে ক্ষয় রোগ দেখা দিলে খুব দ্রুত একজন ভালো ডেন্টাল চিকিৎসকের সরণাপন্ন হতে হবে। ভালো ভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দাঁতের স্কেলিং করালে দাঁতের ক্ষয় রোগ দূর করা সম্ভব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here